সুস্থ থাকতে ঠিক কতটা ভাত খাওয়া উচিত

বাঙালির কাছে সবচেয়ে প্রিয়, সুবিধাজনক, আরামদায়ক খাবার ভাত। বাঙালিদের যেমন ভাতেরপাতে চাই সুস্বাদু শুক্তো, আলু পোস্ত বা মাছ, দক্ষিণীরা এই ভাতই উপভোগ করেন সম্বর, চাটনিসহযোগে। আবার পঞ্জাবীদের জিভে জল আসে রাজমা চাওলের নামে। পেট ভরানো থেকে ভাল ঘুমহওয়া, ভাতের এই গুণগুলোই যে আমাদের ভালবাসার কারণ। অথচ স্বাস্থ্য সচেতনতা এই ভাতকেইকরে তুলছে ভিলেন। ওজন বশে রাখতে ডায়েট থেকে ভাত বাদ দিচ্ছেন অনেকেই। অনেকে আবারবুঝে উঠতে পারেন না ঠিক কতটা ভাত খাওয়া উচিত। কতটা খেলে পেটও ভরবে, অথচ মোটাওহবেন না। নিউট্রিশনিস্ট জামুরুদ পটেল জানাচ্ছেন, যদি নিজের প্রয়োজন অনুযায়ী সঠিক পরিমাণেখান তা হলে ভাত খেলে কখনই মোটা হবেন না। সেই সঙ্গেই খেতে হবে পর্যাপ্ত পরিমাণ ফাইবার।

১০০ গ্রাম সাদা ভাতে পুষ্টির পরিমাণ

ক্যালোরি: ৩৫৭ কিলো ক্যালোরি

প্রোটিন: ৮ গ্রাম

ফ্যাট: ০.৫ গ্রাম

কার্বোহাইড্রেট: ৭৮ গ্রাম

ফাইবার: ২.৮ গ্রাম (২ গ্রাম সলিউবল ফাইবার ও ০.৮ গ্রাম ইনসলিউবল ফাইবার)

ভাত খাওয়ার সঙ্গে ফাইবার খাওয়া অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বিশেষ করে ডায়াবেটিকদের জন্য। তাইনিরামিষ বিরোধী হলেও অবশ্যই ভাতের সঙ্গে সব্জি, ডাল, দই খান। আবার ভাতের মধ্যে যে প্রচুরপরিমাণ স্টার্চ রয়েছে তা শরীরে সঞ্চিত গ্লুকোজ ভেঙে রক্তে ইনসুলিনের পরিমাণ বাড়ায়। তাই তাসামাল দিতেও ডায়াবেটিকদের ফাইবার খাওয়া প্রয়োজন।

পটেলের মতে, কতটা ভাত খাওয়া উচিত তা নির্ভর করে সেই দিনে কতটা ক্যালোরি প্রয়োজন তারউপর। অর্থাত্, আপনি কতটা শারীরিক পরিশ্রম করছেন তার উপর। নির্দিষ্ট করে কিছু বলা যায় না।যদি মনে করেন আপনি বেশি ভাত খেয়ে ফেলছেন, তা হলে সাদা ভাতের বদলে খেতে পারেন ব্রাউনরাইস। যা ক্যালোরির পরিমাণ কিছুটা কমিয়ে ডায়েটে যোগ করবে ফাইবার। পুষ্টিগুণ একই রেখে।

ভাত শুধু পুষ্টিকর খাবারই নয়, কার্বোহাইড্রেট যেমন আমাদের এনার্জি জোগায়, তেমনই ভাতেরসঙ্গে ডাল, সব্জি, মাছ, ডিম, চিকেন খেয়ে থাকি আমরা। যা কার্বোহাইড্রেটের সঙ্গে যোগ করেপ্রোটিন, ভিটামিন, মিনারেল ও ফাইবার। তাই সুস্থ থাকার জন্য মিল হিসাবে ভাত খুবই উপকারি।

SHARE

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here