মুক্তিযোদ্ধা কোটাই তাদের বিরক্তির কারণ

ডেস্ক রিপোর্ট।।  কোটা সংস্কার আন্দোলন নিয়ে সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ও মুক্তিযোদ্ধা নাসির উদ্দিন ইউসুফ বাচ্চু বলেন, পাঁচ বছর আগে আমি একটা লেখা লিখেছিলাম কোটার সংস্কারের জন্য। আমি নিজে চাই কোটার সংস্কার হোক।

 

আসলে একশ’ বছর পর তো আর মুক্তিযোদ্ধা কোটার দরকার হবে না। থাকবেও না। এখন কিছু রাখার প্রয়োজন আছে। শিক্ষার্থীদের আন্দোলন নিয়ে ডয়চে ভেলেকে তিনি বলেন, আন্দোলনটা যখন শুরু হয়েছিল, তখন যেভাবে ছিল, এখন কিন্তু পরিস্থিতি বদলে গেছে। কিছু কিছু আন্দোলনকারী এমন একটা ভাব তৈরি করেছে যে, মুক্তিযোদ্ধা কোটাই তাদের বিরক্তির কারণ। এটা তো উচিত না। আমি তো বলব, নারী কোটা আরো বাড়ানো উচিত। তবে শেষ কথা বলবো, এর একটা যৌক্তিক সমাধান হওয়া দরকার। সরকারের উচিত এটার সমাধান করা।”এদিকে, তিন মাস আগে প্রধানমন্ত্রী জাতীয় সংসদে বলেছিলেন, সরকারি চাকরিতে কোটা পদ্ধতি বাতিল করা হবে। কিন্তু সেই অবস্থান থেকে সরে এসেছেন তিনি। আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের দাবির মুখে গত ১১ এপ্রিল জাতীয় সংসদে কোটা পদ্ধতি না রাখার ঘোষণা দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এরপর কিছুদিন শান্ত থাকলেও প্রজ্ঞাপনের দাবিতে আবারও আন্দোলন শুরু করেন শিক্ষার্থীরা।

 

আন্দোলনকারীদের কয়েকজন নেতার রাজনৈতিক পরিচয় নিয়ে প্রশ্ন উঠার পর সমালোচনাও হতে থাকে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে আন্দোলনকারীদের উপর হামলার ঘটনা ঘটে। আন্দোলনকারীরা সেসব হামলার জন্য ছাত্রলীগকে দায়ী করেছে। তারপর পুলিশও তৎপর হয়ে ওঠে। কয়েকজন আন্দোলনকারীকে গ্রেপ্তার করা হয়। এখন আন্দোলন চললেও নেতাদের অনেকেই পুলিশের ভয়ে গা ঢাকা দিয়েছেন। এরপরও আন্দোলন চলছে। আগামী রবিবার তাঁরা নতুন কর্মসূচী ঘোষণা করবেন।

 

 

 

বাংলানিউজ২৪৭ডটকম।ডেস্ক 

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here