ব্রোঞ্জ জয়ের ম্যাচটা এতো গুরুত্বপূর্ণ কেন!

ইংল্যান্ডের আলো ঝলমলে রাশিয়া বিশ্বকাপটা শেষ হতে পারতো আগামী রোববার। হ্যারি কেনের হাতে উঠতে পারতো শিরোপা। কিন্তু সেমি ফাইনালে ক্রোয়েশিয়ার কাছে হারায় ‘শিরোপাটা ঘরে ফিরছে না’। ১৯৬৬ সালে প্রথম ও শেষবার শিরোপা জিতেছিল। ওটাই তাদের প্রথম ও শেষ বিশ্বকাপ ফাইনালও। এখন ইংল্যান্ডকে তৃতীয়/চতুর্থ স্থান নির্ধারণী ম্যাচে শনিবার লড়তে হবে বেলজিয়ামের বিপক্ষে। এমন ম্যাচের আর তেমন গুরুত্ব কি আর থাকে? থাকে না সাধারণত। সবাই মশগুল রোববার অনুষ্ঠেয় ফ্রান্স-ক্রোয়েশিয়া ফাইনালের আলাপে। কিন্তু বেলজিয়াম-ইংল্যান্ড ম্যাচটিরও কিন্তু বেশ গুরুত্ব থাকছে। যে কারণে তৃতীয়-চতুর্থ স্থান নির্ধারণী বা ব্রোঞ্জ জয়ের ম্যাচটি আপনাকে দেখতে হবে।
ইংল্যান্ডের অধিনায়ক হ্যারি কেন এগিয়ে ৬ গোল নিয়ে। বেলজিয়ামের রোমেলু লুকাকুর গোল ৪টি। ফ্রান্সের কিলিয়ান এমবাপে ও আঁতোয়া গ্রিজমানের আছে তিনটি করে গোল। গোল্ডেন বুট জয়ের সম্ভাবনা এখন পর্যন্ত হ্যারি কেনের বেশি। ইংল্যান্ডের জন্য যেটি বড় পুরস্কারও। কিন্তু শনিবারের ম্যাচে তার প্রতিদ্বন্দ্বী লুকাকু কি আর ছেড়ে কথা কইবেন? তারও তো বড় সুযোগ! বিশ্বকাপ বলে তিনটি করে গোল যাদের ফাইনালে খেলতে নামার সময় থাকবে তাদেরও বা বাদ দেবেন কিভাবে!
১৯৬৬ বিশ্বকাপ জয়ের পর ইংল্যান্ডের বিশ্বকাপে সেরা সাফল্যের স্মৃতি ১৯৯০ ইতালি বিশ্বকাপে। সেবার চতুর্থ হয়েছিল তারা। বারিতে স্বাগতিক ইতালির বিপক্ষে তৃতীয়-চতুর্থ ২-১ গোলে হেরেছিল। শনিবারের ম্যাচটি গ্যারেথ সাউথগেটের ইংল্যান্ড দলের জন্য তৃতীয় স্থান নিয়ে শেষ করে নতুন ইতিহাস লেখারও বটে! বেলজিয়ামের জন্যও ওটা ইতিহাস গড়ার ম্যাচ। ১৯৮৬ মেক্সিকো বিশ্বকাপে তারা চতুর্থ হয়েছিল। এবার তাদের সোনালি প্রজন্মের সামনে তৃতীয় স্থানের হাতছানি।
সূত্র : বিবিসি।

SHARE

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here