জুবায়ের হত্যায় ৫ জনের ফাঁসি বহাল

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) ইংরেজি বিভাগের ছাত্র জুবায়ের আহমেদ হত্যা মামলায় পাঁচজনের ফাঁসি ও দুইজনের যাবজ্জীবন দিয়েছেন আদালত। আজ বুধবার হাইকোর্টে ডেথ রেফারেন্সের রায় পড়া শেষে এ রায় দেন। এর আগে বুধবার সকাল ১০টা ৫০ মিনিটের দিকে বিচারপতি ভবানী প্রসাদ সিংহের নেতৃত্বাধীন হাইকোর্ট বেঞ্চে এই রায় পড়া শুরু হয়।

বেঞ্চের আরেক বিচারপতি মোস্তফা জামান ইসলাম ছুটিতে থাকায় দিন ধার্য থাকলেও গতকাল এই রায় পড়া হয়নি। উভয় বিচারকের উপস্থিতিতে আজ পুনঃনির্ধারিত তারিখে রায় পড়া শুরু হয়।

গত ৯ জানুয়ারি জুবায়ের আহমেদ হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের আপিল ও ডেথ রেফারেন্সের শুনানি শেষ হয়।

প্রসঙ্গত, ২০১৫ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি জুবায়ের আহমেদ হত্যা মামলায় পাঁচজনকে ফাঁসি ও ছয়জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন আদালত। অভিযোগ প্রমাণ না হওয়ায় দুইজনকে খালাস দেওয়া হয়। ঢাকার ৪ নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক এ বি এম নিজামুল হক এ রায় ঘোষণা করেন।

আসামিরা সবাই ছাত্রলীগের নেতা-কর্মী এবং জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থী। ফাঁসির দণ্ড পাওয়া আসামিরা হলেন- প্রাণিবিজ্ঞান বিভাগের আশিকুল ইসলাম আশিক, খান মোহাম্মদ রইছ ও জাহিদ হাসান, দর্শন বিভাগের রাশেদুল ইসলাম রাজু এবং সরকার ও রাজনীতি বিভাগের মাহবুব আকরাম। এদের মধ্যে রাশেদুল ইসলাম রাজু ছাড়া বাকি চারজন পলাতক।

যাবজ্জীবন কারাদণ্ড পাওয়া আসামিরা হলেন- পরিসংখ্যান বিভাগের ছাত্র শফিউল আলম সেতু, অভিনন্দন কুণ্ডু অভি, দর্শন বিভাগের কামরুজ্জামান সোহাগ ও ইশতিয়াক মেহবুব অরূপ, ইতিহাস বিভাগের মাজহারুল ইসলাম এবং অণুজীববিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র নাজমুস সাকিব তপু। যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের মধ্যে অরূপ পলাতক, বাকিরা কারাগারে আছেন।

পরে এ রায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল করেন মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি রাশেদুল ইসলাম রাজু। আসামিদের ডেথ রেফারেন্স হাইকোর্টে আসে।

এর আগে ২০১২ সালের ৮ জানুয়ারি ছাত্রলীগের কর্মী জুবায়ের আহমেদকে কুপিয়ে জখম করে তারই সংগঠনের একটি পক্ষ। পরে তাকে উদ্ধার করে সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হলে ওই দিন রাতেই তাকে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানেই ৯ জানুয়ারি ভোরে মারা যান জুবায়ের আহমেদ।

SHARE

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here