কৌশলের লড়াইয়ে এবার হার বেলজিয়ামের

গতকাল বেলজিয়াম ও ফ্রান্সের মধ্যকার সেমিফাইনাল ম্যাচটা যাঁরা দেখেছেন, তাঁরা অনেকেই স্বীকার করবেন, ম্যাচটা খুব একটা দৃষ্টিসুখকর ছিল না। তাতে অবশ্য ফ্রান্স কোচ দিদিয়ের দেশমের বয়েই গেছে! ম্যাড়মেড়ে ম্যাচ খেলেই যদি বিশ্বকাপের ফাইনালে ওঠা যায়, তাহলে দৃষ্টিসুখকর ম্যাচ খেলে হারার কোনো অর্থ হয় না! ইতিহাস তো ম্যাচের ফলটাকেই মনে রাখে!

উদ্ভাবনী কৌশলে ব্রাজিলকে হারিয়ে উড়তে থাকা বেলজিয়াম কোচ রবার্তো মার্টিনেজকে গতকাল দেশমই নামিয়ে এনেছেন মাটিতে। পুরো টুর্নামেন্টে ফর্মে থাকা লুকাকু এদিন আটকে থাকলেন পাভার-উমতিতির হাতে, জাপানের বিপক্ষে গোল করা ফেলাইনিও বুঝিয়ে দিলেন তাঁকে দিয়ে প্রতিদিন গোল করানো যাবে না। নিষ্প্রভ থাকলেন কেভিন ডি ব্রুইনাও। এক এডেন হ্যাজার্ডই দলকে একা টানার চেষ্টা করে গেলেন, কিন্তু তিনি ব্যর্থ। উমতিতির হেডে ফাইনালে জায়গা পাকা করে নিল ফরাসিরা। আর এই ম্যাচে কৌশলের লড়াইয়ে হেরে গেল বেলজিয়াম।
বেলজিয়ামের এই দলের খেলোয়াড়দের বলা হয় ‘সোনালি প্রজন্ম’। বলা হয়, প্রতিটি পজিশনেই বিশ্বমানের খেলোয়াড় রয়েছে তাদের। হ্যাজার্ড, ডি ব্রুইনা, দেম্বেলে, কোর্তোয়া, ভার্তোনে, অল্ডারভেইরেল্ড, কম্পানি, লুকাকু, মার্তেন্স, ফেলাইনি, ভারমায়েলেন, উইটসেল, তিয়েলেমান্স, মিউনিয়ের, কারাসকো, চ্যাডলি—দুর্দান্ত কিছু ফুটবলারের হাট বসেছে যেন বেলজিয়াম দলে। কিন্তু সব জায়গায় ভালো খেলোয়াড় থাকলেও বেলজিয়ামের এই সোনালি প্রজন্মের সবচেয়ে বড় খুঁত হলো কোনো জাতের লেফটব্যাক না থাকা। এমনকি গত বিশ্বকাপেও দলে কোনো জাত রাইটব্যাক ও লেফটব্যাক ছিল না বেলজিয়ামের। গত বিশ্বকাপের পর রাইটব্যাক হিসেবে পিএসজির থমাস মিউনিয়েরের উত্থান হলেও ডিফেন্সের বাঁ দিকটা সামলানোর জন্য কোনো ভালো লেফটব্যাকই ছিল না বেলজিয়ামের। এ কারণেই কোচ রবার্তো মার্টিনেজ চারজনের ডিফেন্স না খেলিয়ে সব সময় তিনজনের ডিফেন্সে ভরসা করেছেন। লেফট উইঙ্গার হিসেবে নাম কামানো ইয়ানিক-ফেরেইরা কারাসকো বা নাসের চ্যাডলিকে কাজ চালানো লেফট উইংব্যাক হিসেবে খেলিয়ে গেছেন। এই ৩-৪-৩ বা ৩-৫-২ ছকে কাজ চালানো লেফট উইংব্যাক নিয়ে ছোট দলগুলোর সঙ্গে অনায়াসে জেতা গেলেও শক্তিশালী দলগুলোকে হারাতে বেশ বেগ পাওয়ারই কথা ছিল। হয়েছে সেটিই। এভাবে তারা হেরেছে ফ্রান্সের বিপক্ষে গতকাল। মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা হয়ে দেখা দিয়েছিল টমাস মুনিয়েরের নিষেধাজ্ঞা। কোয়ার্টার ফাইনালের মধ্যেই দুটি হলুদ কার্ড খেয়ে খেলতে পারেননি মুনিয়ের। কাল ফ্রান্সের বিপক্ষে সেমিতে দলের ‘সবেধন নীলমণি’ উইংব্যাকের না থাকাটা চোখে পড়েছে বাজেভাবেই।
মুনিয়েরের জায়গায় খেলেছেন দেম্বেলে। সেন্ট্রাল মিডফিল্ডে আজীবন খেলা দেম্বেলের পক্ষে এই জায়গায় খেলাটা সহজ কিছু ছিল না। আর এই ব্যাপারটা জেনেই মার্টিনেজের বেলজিয়ামকে আক্রমণ করে গেছে দেশমের ফ্রান্স। দেম্বেলের হিটম্যাপ দেখেই আপনি বুঝতে পারবেন, রাইট উইংব্যাক হিসেবে তাঁকে খেলতে বলা হলেও তিনি বারবারই মাঝমাঠে চলে আসছিলেন। সেটা হয়তো ইচ্ছে করে নয়, কিন্তু তিনি যেহেতু ওই জায়গার খেলোয়াড়, তাই প্রবণতা থাকাটা অস্বাভাবিক কিছু ছিল না। তবে তাঁর এই ব্যাপারটিতে ভুগেছে বেলজিয়াম।
দেম্বেলেসহ অন্য খেলোয়াড়দের হিটম্যাপ ও টাচম্যাপ দেখে ফেলুন এখানে –

SHARE

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here